Monday, September 26, 2022
HomeClass XModel Activity Task 2021 Class 10 History Part 4 (প্রাচ্য-পাশ্চাত্য শিক্ষা বিষয়ক...

Model Activity Task 2021 Class 10 History Part 4 (প্রাচ্য-পাশ্চাত্য শিক্ষা বিষয়ক দ্বন্দ্ব সম্পর্কে সংক্ষেপে আলােচনা করাে।)

Model Activity Task 2021 Class 10 History Part 4 (প্রাচ্য-পাশ্চাত্য শিক্ষা বিষয়ক দ্বন্দ্ব সম্পর্কে সংক্ষেপে আলােচনা করাে।)

Model Activity Task 2021 Class 10 History Part 4
Model Activity Task 2021 Class 10 History Part 4

১. ‘ক’ – স্তম্ভের সাথে ‘খ’ – স্তম্ভ মেলাওঃ

‘ক’ স্তম্ভ

‘খ’ স্তম্ভ

ক) নিম্নবর্গের ইতিহাস

(i) সরলাদেবী চৌধুরানি

খ) লক্ষ্মীর ভাণ্ডার

(ii) ডিরােজিও

গ) অ্যাকাডেমিক অ্যাসােসিয়েশন

(iii) রনজিৎ গুহ

উত্তরঃ (ক) (iii) (খ) (i) (গ) (ii)

২. সত্য বা মিথ্যা নির্ণয় করােঃ

 

(ক) সংবাদ প্রভাকর পত্রিকার সম্পাদক ছিলেন বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়।

উত্তরঃ- মিথ্যা

(খ) ‘সর্বধর্ম সমন্বয়’-এর আদর্শ প্রচার করেছিলেন রামকৃষ্ণ পরমহংসদেব।

উত্তরঃ- সত্য

(গ) সুই মুন্ডা ছিলেন কোল বিদ্রোহের নেতা।

উত্তরঃ- সত্য

৩. দুটি বা তিনটি বাক্যে নীচের প্রশ্নগুলির উত্তর দাওঃ

(ক) ইন্টারনেট ব্যবহারের দুটি সুবিধা লেখ।

উত্তরঃ- ইন্টারনেট ব্যবহারের দুটি সুবিধা হল

i) যে কোন তথ্য খুব সহজে ঘরে বসে পাওয়া যায়।

ii) বইপত্র বা অন্য কোনাে সূত্রের থেকে অনেক কম সময়ে তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়।

(খ) ডেভিড হেয়ার কেন স্মরণীয়?

উত্তরঃ- পাশ্চাত্য শিক্ষাবিস্তারে স্কটিশ ঘড়ি নির্মাতা ও ব্যবসায়ী ডেভিড হেয়ার এক স্বরণীয় নাম। তিনি ‘ক্যালকাটা স্কুল বুক সােসাইটি’ ও ‘ক্যালকাটা স্কুল সােসাইটি প্রতিষ্ঠা করেন। এ ছাড়াও তিনি কলকাতায় অনেক বিখ্যাত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সূচনা করেন। যেমন, হিন্দু স্কুল, হেয়ার স্কুল ইত্যাদি।

(গ) বারাসাত বিদ্রোহ’ কী ?

উত্তরঃ- তিতুমীরের নেতৃত্বে সংঘটিত বাংলার ওয়াহাবি আন্দোলন বারাসাত বিদ্রোহ নাম খ্যাত। তিনি জমিদার, মহাজন ও নীলকরদের অত্যাচারের বিরুদ্ধে আন্দোলন করেন । ১৮৩০-১৮৩১ খ্রিস্টাব্দের এই আন্দোলন ২৪ পরগনা, নদীয়া, যশােহর, মালদহ প্রভৃতি জেলায় ছড়িয়ে পড়ে ।

8. সাত বা আটটি বাক্যে উত্তর দাওঃ

প্রাচ্য-পাশ্চাত্য শিক্ষা বিষয়ক দ্বন্দ্ব সম্পর্কে সংক্ষেপে আলােচনা করাে।

সূচনা:- ইংরেজ শাসনের সূচনা পর্বে ভারতবাসী পাঠশালা, টোল ও মাদ্রাসায় আরবি, ফারসি, সংস্কৃত প্রভৃতির মাধ্যমে শিক্ষা লাভ করত। ইংরেজি বা পাশ্চাত্য শিক্ষা পেলে ভারতবাসীর মনে স্বাধীনতার স্পৃহা বৃদ্ধি পাবে বলে ব্রিটিশ সরকার এই প্রাচ্য শিক্ষাকে প্রথম দিকে সমর্থন করে ছিল। পরবর্তীকালে ভারতের বিস্তীর্ণ অঞ্চলে ব্রিটিশ শাসন প্রতিষ্ঠিত হলে শাসন কাযের সুভিধার জন্য পাশ্চাত্য শিক্ষায় প্রতি তাদের আগ্রহজনায় ।

দ্বন্দ্বের সূত্রপাত:- সরকারের প্রাচ্য না পাশ্চাত্য শিক্ষা প্রসারে উদ্যোগ নেওয়া উচিত সে বিষয়ে একটি দ্বন্দ্ব শুরু হয় যা প্রাচ্য ও পাশ্চাত্য শিক্ষা বিষয়ক দ্বন্দ্ব নামে পরিচিত। ১৮১০ খ্রিস্টাব্দের সনদ আইনে ব্রিটিশ সরকার ভারতীয় শিক্ষার জন্য প্রতিবছর এক লক্ষ টাকা বরাদ্দ করেন। সেই অনুসারে

জনশিক্ষার নীতিনির্ধারণে উদ্দেশ্যে ১৮২৩ খ্রিস্টাব্দে জনশিক্ষা কমিটি বা ‘কমিটি অফ পাবলিক ইনস্ট্রাকশন’ গঠিত হয়।

জনশিক্ষা কমিটিতে বিভেদ:- জনশিক্ষা কমিটির মধ্যেই প্রাচ্য ও পাশ্চাত্য শিক্ষার সমর্থনে চূড়ান্ত মতভেদ দেখা দেয় এবং কমিটির সদস্যরা দুটি ভাগে বিভক্ত হয়ে যান। এইচ. টি প্রিন্সেপ, কোলক, উইলসন প্রমুখ ছিলেন প্রাচ্যবাদী এবং অন্যদিকে টমাস মেকলে, আলেকজান্ডার ডাফ, স্যান্ডার্স প্রমূখ ছিলেন পাশ্চাত্যবাদী।

পরিণতি বা মূলায়ন:- শেষ পর্যন্ত পাশ্চাত্যবাদী মেকলের যুক্তিজালে এই দন্দ্বের অবসান হয়।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

FansLike
FollowersFollow
0FollowersFollow
FollowersFollow
SubscribersSubscribe
- Advertisment -

Most Popular

State Wise Govt Jobs In India