Wednesday, September 28, 2022
HomeClass XClass 10 Model Activity Task BengaliClass 10 Model Activity Task Bengali Part 4 (দশম শ্রেনীর সমস্ত বিষয় )

Class 10 Model Activity Task Bengali Part 4 (দশম শ্রেনীর সমস্ত বিষয় )

Class 10 Model Activity Task Bengali Part 4 দশম শ্রেণীর বাংলা টাস্ক 

Contents

Model Activity Task

Class 10 (দশম)

Bengali

Part 4

 

Class 10 Model Activity Task Bengali Part 4
Class 10 Model Activity Task Bengali Part 4

 

পঞ্চম শ্রেনীর সমস্ত বিষয় 

[ninja_tables id=”4296″]

দশম শ্রেনীর সমস্ত বিষয় 

[ninja_tables id=”4297″]

 

১. ঠিক উত্তরটি বেছে নিয়ে লেখাে :

১.১ তপনের লেখা যে গল্পটি ‘সন্ধ্যাতারা’ পত্রিকায় ছাপা হয়েছিল—

ক) রাজা ও রানি

খ) অ্যাকসিডেন্ট

গ) প্রথম দিন

ঘ) স্কুলে ভরতি হওয়ার দিনের অভিজ্ঞতা

উত্তরঃ গ) প্রথম দিন

১.২ পাঠ্য ‘অসুখী একজন’ কবিতাটির অনুবাদক –

ক) শঙ্খ ঘােষ

খ) নবারুণ ভট্টাচার্য

খ) উৎপলকুমার বসু

ঘ) মানবেন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়

উত্তরঃ খ) নবারুণ ভট্টাচার্য

১.৩ ‘আফ্রিকা’ কবিতাটি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের যে কাব্যগ্রন্থে রয়েছে-

ক) মানসী

খ) চিত্রা

গ) পত্রপুট

ঘ) নৈবেদ্য

উত্তরঃ গ) পত্রপুট

১.৪ ‘বাবু কুইল ড্রাইভারস’কথাটি বলতেন-

ক) ওয়াটারম্যান

খ) লর্ড কার্জন

গ) উইলিয়াম জোন্স

ঘ) উইলিয়াম হেস্টিংস

উত্তরঃ খ) লর্ড কার্জন

১.৫ যে কাব্যগ্রন্থটি শঙ্খ ঘােষের লেখা নয়-

ক) দিন ও রাত্রি

খ) দিনগুলি রাতগুলি

গ) পাঁজরে দাঁড়ের শব্দ

ঘ) ধূম লেগেছে হৃৎ কমলে।

উত্তরঃ ক) দিন ও রাত্রি

২. কম-বেশি ২০টি শব্দের উত্তর লেখাে :

২.১ কোন্ কথাটি শুনে তপনের চোখ মার্বেল হয়ে গিয়েছিল?

উত্তরঃ তপন তার বালক বয়সে কোনোদিন কোনো লেখককে স্বচক্ষে দেখেনি। কবি-লেখকরাও যে আমাদের মতো সাধারণ বাস্তব জগতের প্রাণী এ কথাই তপন জানত না। তাই সে যখন শুনল যে, তপনের ছোট মেসো পেশায় একজন লেখক এবং তার বই ছাপা হয় । একথা শুনে তপনের চোখ মার্বেল হয়ে গিয়েছিল।

 

দশম শ্রেনীর সমস্ত বিষয় 

[ninja_tables id=”4297″]

 

২.২ ‘অসুখী একজন’ কবিতাটি পাবলাে নেরুদার কোন্ কাব্যগ্রন্থের অন্তর্গত?

উত্তরঃ অসুখী একজন কবিতাটি নোবেলজয়ী সাহিত্যিক পাবলো নেরুদার “Extravagation” কাব্যগ্রন্থের অন্তর্গত।

২.৩ ‘হারিয়ে যাওয়া কালি কলম’ প্রবন্ধে প্রাবন্ধিক ছেলেবেলায় কার লেখা জ্যামিতি পড়েছিলেন বলে জানিয়েছেন?

উত্তরঃ বাংলা ভাষায় বিজ্ঞান প্রবন্ধের প্রাবন্ধিক রাজ শেখর বসু ব্রহ্মমোহন মল্লিকের লেখা জ্যামিতি বই পড়েছেন বলে জানিয়েছেন।

২.৪ ‘আফ্রিকা’ কবিতায় দিনের অন্তিমকাল কীভাবে ঘােষিত হয়েছিল?

উত্তরঃ অশুভ ধ্বনিতে ঘোষিত হয় দিনের অন্তিমকাল।

২.৫ ‘আয় আরাে বেঁধে বেঁধে থাকি’ কবিতায় কবি ‘পায়ে পায়ে হিমানীর বাঁধ’ বলতে কী নির্দেশ করেছেন?

উত্তরঃ

হিমানী শব্দের অর্থ হলো বরফের বাধ। এখানে কবি প্রতি পদক্ষেপে বিপদের কথা বলেছেন বা প্রতি পদক্ষেপে হিমানী বাঁধের বাধার কথা বলেছেন।

3. প্রসঙ্গ নির্দেশসহ কম-বেশি ৬০টি শব্দের মধ্যে উত্তর লেখো :

3.1 ‘ওর হবে।’—বক্তা কে? কেন তার এমন মনে হয়েছে?

উত্তরঃ

আশাপূর্ণা দেবী রচিত জ্ঞানচক্ষু গল্পে, উদ্ধৃত উক্তিটির বক্তা হলেন তপনের ছোট মেসো মশাই। গল্পের প্রধান চরিত্র তপন ছোট বয়স থেকেই সে গল্প লিখতে খুব ভালোবাসে, তপনের বয়সের ছেলেমেয়েরা যেসব গল্প লিখতে পারে, যেমন রাজা রানীর গল্প, খুন-জখমের গল্প প্রভৃতি কিন্তু তখন তাদের ব্যাতিক্রম , তপন লিখে ফেলল তার স্কুলে ভর্তি হওয়ার প্রথম দিনের অভিজ্ঞতা ও অনুভূতি, লেখক মেসোর এ ব্যাপারটি বড়ই ভালো লাগে, এবং তার পরই তিনি আলচ্য উক্তিটি করে বসেন।

৩.২ ‘অসুখী একজন’ কবিতায় কার মাথার উপর বছরগুলি কেন পর পর পাথরের মতাে নেমে এসেছিল?

উত্তরঃ

জীবন ও জীবিকার জন্য বাসভূমি ছেড়ে দূরে চলে যাওয়া তার মানুষটি যে ফিরে আসবেন না এ কথা তার প্রেমিকার অজানা ছিল। কিন্তু জীবন এতে থেমে থাকেনি। বৃষ্টিতে কবির পায়ের দাগ মুছে তাতে ঘাস জন্মায়। নিরন্তর অপেক্ষা চলতেই থাকে।

     দীর্ঘ প্রতীক্ষার নারীর জীবনে তার প্রিয়তমের অনুপস্থিতির বছরগুলাে যেন পাথরের বােঝা হয়ে তার মাথার ওপর নেমে আসে। এখানে পর পর’ বলতে বিচ্ছেদবেদনার গভীরতা বােঝানাে হয়েছে।

3.3 ‘আমরা ভিখারি বারোমাস।–“আয় আরো বেঁধে বেঁধে থাকি’ কবিতায় কবির এমন মন্তব্যের কারণ বিশ্লেষণ করো।

উত্তরঃ

আয় আরো বেঁধে বেঁধে থাকি কবিতাটিতে শঙ্খ ঘোষ , আমরা ভিখারি বারো মাস বলতে , কবি মানুষের দৈন্যদশার কথা তুলে ধরেছেন, কবি বোঝাতে চেয়েছেন মানুষ নানা প্রতিকুলতা যুগ যন্ত্রণার ক্ষত নিয়ে বেঁচে আছেন। এ মানুষগুলি প্রকৃত ইতিহাস এর প্রতিফলন হয়নি, সেই মানুষগুলি নিশ্রুপ ও বহির্বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন। তাই কবি আলোচ্য লাইনটিতে অবহেলিত মানুষের কথা তুলে ধরেছেন।

৩.৪ ‘উদ্ভ্রান্ত আদিম যুগের কথা ‘আফ্রিকা’ কবিতায় কীভাবে উল্লিখিত হয়েছে?

উত্তরঃ

সৃষ্টির আদিকাল প্রাগৈতিহাসিক তমসাবৃত, অবিন্যস্ত সেই সময় যখন প্রকৃতি আদিমতায় আচ্ছন্ন ছিল ।

      স্রষ্ঠা তখন নিজের নব নব সৃষ্টি প্রতি অসন্তোষ বসত সেগুলিকে বারবার বিধ্বস্ত করছিলেন। এটি বিশেষ কোনো মুহূর্ত নয় সেই মহা মহিয়ান সর্ব নির্মাতার সৃষ্টিকর্মের পর্বে পর্বে বিন্যস্ত হয়েছে প্রকৃতির রূপটি।

 

দশম শ্রেনীর সমস্ত বিষয় 

[ninja_tables id=”4297″]

 

3.5 ‘আমি যেখানে কাজ করি সেটা লেখালেখির আপিস। সেই আপিসের চিত্র লেখক কীভাবে উপস্থাপিত করেছেন?

উত্তরঃ প্রাবন্ধিক শ্রিপান্ত জানিয়েছেন তিনি লেখালেখির অফিসে কাজ করেন, কিন্তু কারানো হাতে কলম নেই, সকলেই বসে থাকে এক চৈক আয়নার মত কম্পিউটারের দিকে, কিবোর্ড দিয়ে প্রতিটি অক্ষর অনায়াসে লিখে ফেলেন, অফিসে কবি ছাড়া আর কেউই তেমন কলম ব্যবহার করেন না, কবির অফিসের প্রত্যেকেই লেখক কিন্তু তাদের হাতে কলম নেই।

নীচের উত্তর নিজের ভাষায় লেখাে (কম-বেশি ১৫০ শব্দ):

৪.১ ‘পৃথিবীতে এমন অলৌকিক ঘটনাও ঘটে?’—কোন্ ঘটনাকে ‘অলৌকিক’ আখ্যা দেওয়া হয়েছে? সেই ঘটনার প্রতিক্রিয়া কী হয়েছিল, ‘জ্ঞানচক্ষু’ গল্প অনুসারণে বুঝিয়ে দাও।

উত্তরঃ

প্রখ্যাত শিশুসাহিত্যিক আশাপূর্ণা দেবীর গল্প ‘জ্ঞানচক্ষু’র কেন্দ্রীয় চরিত্র তপন।

       বিশাল পৃথিবীতে স্বল্প বাস্তবতাবােধ নিয়ে আর- পাঁচটা শিশুর মতােই তারও পথ চলা। লেখকদের সম্পর্কে তার ধারণা সে কথাই বলে। সেই তপন তার নতুন লেখক মেলােমশাইয়ের সান্নিধ্যে এসে তার প্রতিভাকে বিকশিত করে কাঁচা হাতে লিখে ফেলে একটা আস্ত গল্প। সেই গল্প মেসাের হাতে গেলে মেসাে তপনের ও বাড়ির লােকেদের মন রাখার জন্য তা সামান্য কারেকশান করে সন্ধ্যাতারা’ পত্রিকায় ছাপিয়ে গ দেওয়ার অঙ্গীকার করেন ও সেটি নিয়ে যান। এর বেশ কিছু দিন পর সন্ধ্যাতারা’ পত্রিকায় গল্পটি ছেপে বেরােয়। তপনের কাছে এই চমকপ্রদ ঘটনাটিই অলৌকিক বলে মনে হয়েছিল। 

    ‘অলৌকিক’ শব্দটির আভিধানিক অর্থ হল মানুষের পক্ষে যা সম্ভব নয় বা পৃথিবীতে সচরাচর ঘটে না। এক্ষেত্রে ছছাট্ট তপনের লেখা গল্প পরিবেশ ও পরিস্থিতির সমন্বয়ে যেভাবে ছাপার অক্ষরে প্রকাশিত হয়েছিল সেটাই অলৌকিক। আসলে তপনের লেখক সম্পর্কে ধারণার অবসান, গল্প লেখা, তা মেসাের হাত ধরে ছাপার অক্ষরে প্রকাশিত হওয়া প্রভৃতি ঘটনাগুলি তার কাছে এতটাই অবিশ্বাস্য যে, তার মনে হয় সমস্তটা ঘটনাটিই যেন অলৌকিক।

4.2 ‘আয় আরো বেঁধে বেঁধে থাকি’ কোন্ কাব্যগ্রন্থের অন্তর্গত কবিতা? কবিতায় এই আহ্বান ধ্ববিত হয়েছে কেন?

উত্তরঃ

আয় আরও বেঁধে বেঁধে থাকি- কবিতাটি সমসাময়িক কালের অন্যতম শ্রেষ্ঠ কবি শঙ্খ ঘোষের ‘জলই পাষাণ হয়ে আছে’ কাব্যসংকলন থেকে গৃহিত হয়েছে। আলোচ্য কবিতার প্রেক্ষাপটে রয়েছে যুদ্ধ-বিধ্বস্ত অসহায় মানুষের জীবনসংগ্রামের কথা। বিপদ তাদেরকে ঘিরে ফেলেছে। তাদের বাঁয়ে গিরিখাত, ডানদিকে ধস, মাথায় বোমারু বিমান এবং পথ চলতে বাধার সৃষ্টি করে হিমানীর বাঁধ। এহেন বিপর্যয়ের বেঁচে আছে না মরে গেছে। এইরকম বিপদসংকুল পরিস্থিতিতে যা করা উচিত, এরাও তাই করেছে। যে’কজন বেঁচে আছে তারা দিনে কারো মাথা গোঁজার জায়গা নেই কারণ যুদ্ধের ফলে তাদের ঘরের ছাউনি উড়ে গেছে। চারদিকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা শিশুদের শব দেখে তারা ভাবে যে হয়তো তারাও এবার মরে যাবে। বাঁচার শেষ ইচ্ছেটুকু নিয়ে অসহায় মানুষজন একে অপরের হাত ধরে। বিশেষ-পরিচিতিহীন এইসব মানুষ ইতিহাসে ব্রাত্য। এদের কথা ভাবার মতো কেউ নেই। আবার, চারিদিকে মৃত্যুর ছায়া দেখে এরা বুঝে উঠতে পারে না যে পৃথিবী আদৌ যা করা উচিত, এরাও তাই করেছে। যে’কজন বেঁচে আছে তারা একে অপরের হাত ধরে, সঙ্ঘবদ্ধভাবে বাঁচার শপথ নেয়। জীবন যখন সংকটাপন্ন তখন ঐক্যবদ্ধভাবে বেঁচে থাকাই জীবনের একমাত্র মন্ত্র হয়ে দাঁড়ায়। আলোচ্য কবিতাতেও দু’বার সেই কথার পুনরাবৃত্তি ঘটেছে- আয় আরো বেঁধে বেঁধে থাকি’। অতএব, বিষয়বস্তুর সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে এই কবিতার নামকরণ সার্থকহয়েছে, একথা নিঃসন্দেহে বলা যায়।

৪.৩ ‘দস্যুরা কীভাবে আফ্রিকার ইতিহাসে চিরচিহ্ন এঁকে দিয়ে গিয়েছিল, তা ‘আফ্রিকা’ কবিতা অনুসরণে আলােচনা করাে।

উত্তরঃ

রবীন্দ্রনাথের আফ্রিকা কবিতায় উদৃত পংক্তিতে অপমানিত আফ্রিকাকে এ কথা বলা হয়েছে।

রবীন্দ্রনাথ তাঁর ‘আফ্রিকা’ কবিতায় ‘অপমানিত ইতিহাস’ বলতে সাম্রাজ্যবাদী শাসকদের দ্বারা শােষিত আফ্রিকার বঞ্চনা ও লাঞ্ছনার ইতিহাসকে বুঝিয়েছেন। সৃষ্টির সূচনা থেকেই আফ্রিকা অরণ্যাবৃত। সে তথাকথিত উন্নত সভ্যতার আলাে থেকে বহুদূরে নির্বাসিত ছিল। সভ্য ইউরােপীয় সভ্যতার চোখেও আফ্রিকা উপেক্ষিত ছিল দীর্ঘদিন। তথাকথিত সভ্য’ পাশ্চাত্য সভ্যতা আফ্রিকার নিজস্ব জীবনধারা, ঐতিহ্য, সংস্কৃতি ইত্যাদিকে স্বীকার করত না। কিন্তু উনবিংশ শতকে ইউরােপীয়রা আফ্রিকায় ইত্যাদিকে স্বীকার করত না। কিন্তু উনবিংশ শতকে ইউরােপীয়রা আফ্রিকায় উপনিবেশ স্থাপনের সূচনার ফলে ক্রমে এই শতকের শেষে প্রায় পুরাে আফ্রিকাই ইউরােপের বিভিন্ন দেশের উপনিবেশে পরিণত হয়। আফ্রিকার সম্পদের সন্ধান পেতে এই শ্বেতাঙ্গ ঔপনিবেশিক তথা সাম্রাজ্যবাদীর দল শুরু করে মানবিক লাঞ্ছনা। আফ্রিকার কৃয়াঙ্গ সরল মানুষগুলিকে লােহার হাতকড়ি পরিয়ে মানুষ-ধরা’ এই বর্বরেরা তাদের পরিণত করে ক্রীতদাসে। তাদের বর্বরতা ও লােভ আফ্রিকার সূর্যহারা অরণ্যের চেয়েও কালাে। এইসব অত্যাচারিত মানুষদের রক্ত ও অশুতে কর্দমাক্ত হয় আফ্রিকার বনপথের ধুলাে। সাম্রাজ্যবাদী দস্যুদের কাটা-মারা জুতাের তলার কাদার পিণ্ড এভাবেই আফ্রিকার অপমানিত ইতিহাসে চিরচিহ্ন দিয়ে গিয়েছে।

4.4 ‘জন্ম নিল ফাউন্টেন পেন।”—‘হারিয়ে যাওয়া কালি কলম’রচনা অবলম্বনে ফাউন্টেন পেনের জন্মবৃত্তান্ত আলোচনা করো।

উত্তরঃ

ফাউন্টেন পেনের বাংলা নাম; ফাউন্টেন পেনের বাংলা নাম ঝরনা কলম।

বাংলা নামকরণ: শ্রীপান্থ রচিত ‘হারিয়ে যাওয়া কালি কলম’ নামটি সম্ভবত রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের দেওয়া বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

জন্ম-ইতিহাস:- পণ্ডিতদের মতে, কলমের দুনিয়ায় সত্যিকারের বিপ্লব ঘটিয়েছে ফাউন্টেন পেন। কিন্তু এর জন্ম-ইতিহাসটি বেশ চমকপ্রদ।আবিস্কারক লুইস অ্যাডসন ওয়াটারম্যান। তিনি এই নতুন ধরনের কলম তৈরি করে অফুরন্ত  কালির ফোয়ারা খুলে দিয়েছিলেন।

চুক্তিপত্র সই: সেকালের আরও অনেক ব্যবসায়ীর মতো তিনিও দোয়াত কলম নিয়ে কাজে বের হতেন। একবার তিনি গিয়েছেন আর-একজন ব্যবসায়ীর সঙ্গে চুক্তিপত্র সই করতে। দলিল কিছুটা লেখা হয়েছে এমন সময় দোয়াত হঠাৎ উপুড় কাগজে পড়ে গেল। ফলে বাধ্য হয়ে তিনি ছুটলেন কালির সন্ধানে। ফিরে এসে শোনেন, ইতিমধ্যে অন্য একজন তৎপর ব্যবসায়ী সইসাবুদ শেষ করে চুক্তিপত্র পাকা করে গেছেন।

প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হওয়া:- এই ঘটনায় বিমর্ষ ওয়াটারম্যান মনে মনে প্রতিজ্ঞা করলেন, এর একটা বিহিত করতেই হবে। অর্থাৎ এমন একটা পদ্ধতির খোঁজ করতে হবে যেখানে কলমের সঙ্গে কালির দোয়াত নিয়ে ঘুরতে হবে না। তারপরই আবিষ্কার করলেন ফাউন্টেন পেন।

নবযুগেরপ্রতিষ্ঠা: দোয়াতের যুগের অবসান ঘটিয়ে কালক্রমে এই ফাউন্টেন পেন লেখালেখির নবযুগের প্রতিষ্ঠা ঘটাল।

৪.৫ ‘তারপর যুদ্ধ এল।’- কীসের মতাে যুদ্ধ এল? তার কী পরিণতি ঘটল?

উত্তরঃ

চিলিয়ান কবি পাবলাে নেরুদা জীবনযুদ্ধের একজন লড়াকু সৈনিক। চোখের সামনে ঘটে যাওয়া দুই বিশ্বযুদ্ধ প্রত্যক্ষ করেছেন তিনি। তাই পাঠ্য কবিতায় তিনি যুদ্ধের যে করুণ ও মর্মস্পর্শী ছবি এঁকেছেন তা অত্যন্ত বাস্তববাচিত। 

           অসুখী একজন’ কবিতাটি আসলে যুদ্ধের প্রেক্ষাপটে এক শাশ্বত ভালােবাসার গল্প। কবি যুদ্ধের বীভৎসতার মাঝে প্রেম যে অনির্বাণ তা দেখাতে গিয়ে খণ্ড খণ্ড যুদ্ধের চিত্র তুলে ধরেছেন। কবি তার প্রিয়তমাকে অপেক্ষায় রেখে দূরে চলে যাওয়ার পর একদিন ভয়াবহ বীভৎসতা নিয়ে যুদ্ধ নেমে এল। মানুষ আশ্রয়হীন হল। নৃশংসতার হাত থেকে রেহাই পেল না শিশুরাও। দাবানলের মতাে যুদ্ধের আগুন সমতলে ছড়িয়ে পড়ল। ধ্বংস হল দেবালয় আর তার ভেতরের দেবতারা। তাদের দেবত্ব নষ্ট হল। মানুষকে তারা স্বপ্ন দেখাতে ব্যর্থ হল। কবির সেই মিষ্টি চিলিয়ান কবি পাবলাে নেরুদা জীবনযুদ্ধের একজন লড়াকু সৈনিক। চোখের সামনে ঘটে যাওয়া দুই বিশ্বযুদ্ধ প্রত্যক্ষ করেছেন তিনি। তাই পাঠ্য কবিতায় তিনি যুদ্ধের যে করুণ ও মর্মস্পর্শী ছবি এঁকেছেন তা অত্যন্ত বাস্তববাচিত।

             অসুখী একজন’ কবিতাটি আসলে যুদ্ধের প্রেক্ষাপটে এক শাশ্বত ভালােবাসার গল্প। কবি যুদ্ধের বীভৎসতার মাঝে প্রেম যে অনির্বাণ তা দেখাতে গিয়ে খণ্ড খণ্ড যুদ্ধের চিত্র তুলে ধরেছেন। কবি তার প্রিয়তমাকে অপেক্ষায় রেখে দূরে চলে যাওয়ার পর একদিন ভয়াবহ বীভৎসতা নিয়ে যুদ্ধ নেমে এল। মানুষ আশ্রয়হীন হল। নৃশংসতার হাত থেকে রেহাই পেল না শিশুরাও। দাবানলের মতাে যুদ্ধের আগুন সমতলে ছড়িয়ে পড়ল। ধ্বংস হল দেবালয় আর তার ভেতরের দেবতারা। তাদের দেবত্ব নষ্ট হল। মানুষকে তারা স্বপ্ন দেখাতে ব্যর্থ হল। কবির সেই মিষ্টি

5. নির্দেশ অনুযায়ী উত্তর দাও :

5.1 অনুসর্গ হলো একপ্রকার—

(ক) বিশেষ্য পদ

(খ) বিশেষণ পদ

(গ) সর্বনাম পদ

(ঘ) অব্যয় পদ

উত্তরঃ (ঘ) অব্যয় পদ

5.2 ‘বিভক্ত  কখনোই লুপ্ত হয় না—

(ক) কর্মকারকে

(খ) করণ কারকে

(গ) সম্বন্ধ পদে

(ঘ) কর্তৃকারকে

উত্তরঃ (ক) কর্মকারকে

5.3 নির্দেশকের একটি উদাহরণ হলো—

(ক) হইতে

(খ) কর্তৃক

(গ) জন্য

(ঘ) গুলি

উত্তরঃ (ঘ) গুলি

6. বঙ্গানুবাদ করো :

Home is the first School where the Child learns his first lesson. He sees, hears and begins to learn at home. It is home that builds his Character. In a good home honest and healthy men are made.

উত্তরঃ গৃহ হলো ছাত্র-ছাত্রীদের প্রথম বিদ্যালয় , যেখানে শিশুরা তাদের প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণ করে। শিশু দেখে , শুনে এবং সেখানেই তাঁর প্রথম শিক্ষা শুরু করে। গৃহ হল এমন এক স্থান যেখানে শিশুদের চরিত্র গঠন হয়। উন্নতমানের পরিবার সৎ এবং সুস্থ মানুষ তৈরি করে।

 

পঞ্চম শ্রেনীর সমস্ত বিষয় 

[ninja_tables id=”4296″]

দশম শ্রেনীর সমস্ত বিষয় 

[ninja_tables id=”4297″]

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

FansLike
FollowersFollow
0FollowersFollow
FollowersFollow
SubscribersSubscribe
- Advertisment -

Most Popular

State Wise Govt Jobs In India